কোরবানির আমল কি কি

মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং অত্যন্ত আনন্দের দিন হচ্ছে কোরবানির ঈদের দিন। তবে যারা কেবল কোরবানির ঈদের দিনে শুধুমাত্র আনন্দ উল্লাসে মেতে থাকবেন তারা অত্যন্ত কোরবানির কাজ করবেন তার কারণ হলো এই কোরবানির দিনে অবশ্যই এমন কিছু আমল আছে যে আমল গুলো আপনি করলে আল্লাহ তা’আলা আপনার উপর অনেক বেশি খুশি হবেন।

কোরবানির আমলগুলো সম্পর্কে আমরা জানার চেষ্টা করবে এবং জানার চেষ্টাও করবো এই আমলগুলো দ্বারা কিভাবে আমরা আমাদের জীবনকে সাজাতে পারি। কোরবানি আমার সম্পর্কে নিজে হাদিস কোরআনের আলোকে বিভিন্ন তথ্য বর্ণনা করার চেষ্টা করব।

কোরবানির দিনের আমলসমূহ

কোরবানির দিনে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ আমল হল আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য আল্লাহর উদ্দেশ্যে কোরবানি দেওয়া। এখানে যারা সামর্থ্যবান তাদেরকেই কেবল কোরবানি দিতে বলা হয়েছে। যারা আর্থিকভাবে অসচ্ছল তাদের ওপর কখনোই জোর করে কোরবানি দেওয়ার দায়িত্ব আল্লাহ তা’আলা চাপিয়ে দেননি তাই আপনাদের মধ্যে যারা আর্থিকভাবে সচ্ছল তারাই কেবল কোরবানি দেবেন। এবং সহি ভাবে আল্লাহ তায়ালার উদ্দেশ্যে কুরবানী দেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ আমল।

কোরবানীর দিনে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ আমল হলো ঈদের সালাত আদায় করা। ঈদের সালাত আদায় করার জন্য অবশ্যই আপনাকে প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে এবং সঠিক সময়ে উপস্থিত হয়ে ঈদের সালাত আদায় করা কোরবানি দিনের অত্যন্ত ফজিলত নয় একটি আমল।

সকালে আপনাকে ঘুম থেকে উঠতে হবে এবং সবার প্রথমে চেষ্টা করতে হবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অর্জন করতে। আপনি পবিত্রতা অর্জনের উদ্দেশ্যে খুব সুন্দর ভাবে গোসল করতে পারেন এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন কাপড় এবং এর সঙ্গে উত্তম সুগন্ধি মেখে পবিত্রতা অর্জন করতে পারেন। এগুলো আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম করতেন এবং আমরা যদি এটা করি তাহলে আমাদের জন্য সুন্নত পালন করা হবে।

কোরবানি দিনে আপনি যখন ঈদগাহে যাবেন তখন অবশ্যই একটি পথে ঈদগাহে যাবেন এবং ভিন্ন পথে ঈদগাহ থেকে ফিরে আসবেন এবং এটা আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম করতেন যা আমাদের জন্য সুন্নত করা হয়েছে।

ভোরে দিনে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ আমল হলো তাকবির পাঠ করতে করতে কোরবানির ঈদগাহে নামাজ পড়তে যাওয়া। ঈদুল আযহার নামাজ ঈদগাহে অনুষ্ঠিত হয় এবং আপনি বাড়ি থেকে ঈদগাহে পায়ে হেঁটে যাবেন এটা সুন্নত এবং তার সঙ্গে তাকবীর জোরে জোরে পাঠ করতে করতে যাবেন এটা হচ্ছে আরও একটি সুন্নত।

এছাড়াও কোরবানি দিনে কোরবানির পশু যবে করা ও তার গোস্ত আত্মীয়-স্বজন পাড়া প্রতিবেশী ও বন্ধু-বান্ধবের মাঝে বিলিয়ে দেওয়া এবং দরিদ্রদের মাঝে দান করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি আমল। তবে যত দিন যাচ্ছে আমরা এই আমল থেকে পিছিয়ে যাচ্ছে তাই আমাদের কোরবানি দিনে আল্লাহর উদ্দেশ্যে এই আমল গুলো মন থেকে করতে হবে যে আমল দ্বারা আমরা আল্লাহতালা সন্তুষ্টি অর্জন করতে পারি।

আপনারা যারা কোরবানি কে সামনে রেখে বিভিন্ন আমলের মাধ্যমে নিজের আমলনামা কে সুন্দর করে সাজাতে চাচ্ছেন তারা উপরে উল্লেখিত আমল গুলো খুব সুন্দর ভাবে করতে পারবেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *