মেয়েদের ইমপ্রেস করার কবিতা

কবিতা পড়তে সবাই পছন্দ করে। কবিতা পছন্দ করে না এমন মানুষ এখনকার সময় খুব একটা দেখা যায় না। তবে আগের দিনে কবিতার অনেক কদর ছিল। বর্তমানে প্রযুক্তির ব্যাপক উন্নতির কারণে মানুষ গল্প কবিতা পড়তে খুব একটা সময় ব্যয় করতে চায় না। সেই হিসেবে বলাই যায় কবিতা পড়তে সবাই পছন্দ করলেও দরদ দিয়ে কেউ পড়ে না। একদম মন থেকে ভালোবেসে যারা কবিতা পড়ে তারাই আসল কবিতা প্রেমী। একটা সময় ছিল যখন মানুষ শত শত কবিতার বই কিনে পড়া শুরু করত। এখনকার সময়ে ইন্টারনেটে একটু খুঁজলেই যে কোন কবিতা খুব সহজে পাওয়া যায় তারপরেও মানুষ কবিতা পড়তে উৎসাহী নয়।

আজ আমরা কবিতা নিয়ে কিছু কথা বলতে চলেছি। ছন্দ সবাই পছন্দ করে। কবিতার একটি বিশেষ ধর্ম হল ছন্দের মিল। এই ছন্দের মিল থাকাটা কবিতার সৌন্দর্য কয়েকগুণ বাড়িয়ে তোলে। যারা কবিতা পড়েন তারা নিশ্চয়ই জানেন কবিতার বেশ কিছু প্রকারভেদ রয়েছে। বড় বড় কবিরা তাদের ঈশ্বর প্রদত্ত ক্ষমতা দিয়ে সৃষ্টি করে গেছেন অসাধারণ সব ছন্দ।

আপনি যদি যেকোন শিশুকে দু-একটি কবিতা শোনান তবে সে পরবর্তীতে আপনার কাছে বায়না ধরবে। এই যে শিশুদের মধ্যে কবিতা শোনার আগ্রহ তৈরি হওয়া, এ থেকে বোঝা যায় কবিতার ক্ষমতা কতটুকু। একজন কবি চাইলে তার পাঠকদের মনে নেশা জাগিয়ে তুলতে পারে। কবিতার নেশা হলো সুন্দর নেশা, বিবেককে জাগ্রত করার নেশা, সৌন্দর্যকে আলিঙ্গন করার নেশা, সৌন্দর্যের প্রশংসা করার নেশা।

আমাদের আজকের লেখায় আমরা যে বিষয়টা আলোচনা করতে চলেছি তা হল কিভাবে কবিতার মাধ্যমে একটি মেয়েকে ইমপ্রেস করবেন। আপনারা লক্ষ্য করলে দেখবেন মেয়েদের কবিতা শোনালে তারা অনেক খুশি হয়। কবিতা শুনতে তারা খুব ভালোবাসে। আসলে কবিতায় থাকে প্রেম, আর প্রেম দিলে কোন মেয়ে গ্রহণ করবে না তা এই পৃথিবীতে কখনো ঘটেনি। আপনি যদি এই পৃথিবীর সবচেয়ে খারাপ মানুষটিও হন এবং কোন মেয়েকে নিজের অন্তরের গভীর থেকে প্রেম দিতে চান তবে সে প্রেমকে অস্বীকার করবে না। হয়তো আপনাকে সে সরাসরি গ্রহণ করে নেবে না কিন্তু আপনার প্রেমকে সরাসরি ফিরিয়ে দেওয়ার মত ক্ষমতা তাদের নেই।

নারীদের হৃদয় হল এই পৃথিবীর সবচেয়ে কোমল। এই কোমল হৃদয় কে আরো কোমল ভাবে স্পর্শ করতে জানতে হয়।। কবিতা হল নারীদের কোমল হৃদয় কে স্পর্শ করার সবচেয়ে উপযুক্ত মাধ্যম। কবিতা দিয়ে আপনি যে কাউকে বশ করে ফেলতেও পারেন। কবিরা তাদের কলমের কালি দিয়ে যুগে যুগে বশ করে গেছে লাখো মানুষকে। বড় বড় বাঘা বাঘা বীররাও হার মেনেছে কবিতার কাছে। একটি পাষাণ হৃদয়ও কবিতার কাছে আত্মসমর্পণ করতে সদা প্রস্তুত সেখানে একটি নারীর হৃদয় কিভাবে মুখ ফিরিয়ে থাকতে পারে।

আপনি যদি একটি মেয়েকে খুব সহজে বশ করে ফেলতে চান কবিতার আশ্রয় নিন। কবিতা দিয়ে তার মনের ভেতরে প্রেম জাগ্রত করে ফেলুন। প্রেমকে জাগ্রত করতে পারলে সে কবিতা ভালোবাসতে শুরু করবে, আর কবিতাকে ভালবাসতে শুরু করলে সে কবিকে ভালবাসতে শুরু করবে। আর আপনি হবেন সেই কবি, যুগ যুগ ধরে যার জন্য সে অপেক্ষা করে এসেছে।

সর্বোত্তম পন্থা হলো নিজে লিখে তার কাছে কবিতা পাঠানো। আপনি নিজে থেকে যদি কবিতা লিখতে না পারেন তবে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে কিছু কনসেপ্ট ধার করে নিতে পারেন। আমাদের ওয়েব সাইটে আপনি বেশ কিছু ছন্দ পেয়ে যাবেন যা নিজের কবিতার মধ্যে ব্যবহার করতে পারবেন। কবিতা লিখতে শুরু করার জন্য সর্বপ্রথম আপনাকে লেখার প্রস্তুতি নিতে হবে। আপনার ভাবনার স্পেস টাকে আরো বেশি প্রসারিত করতে হবে। নিজেকে বিলিয়ে দিতে হবে সাহিত্য সাধনায়। আপনি যদি আপনার পছন্দের মানুষের চেহারা কল্পনা করতে থাকেন তবে আপনা আপনি আপনার মনের ভেতর থেকে কবিতার ছন্দ বের হয়ে আসবে। আমার বিশ্বাস আপনারা চেষ্টা করে দেখবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.