বাংলা জোকস হাসির কৌতুক

আমরা সকলেই কোন না কোন পেশার সাথে জড়িত। আমরা যে পেশার সাথেই জড়িত হই না কেন, পরিশ্রম করেই আমাদের জীবিকা নির্বাহ করতে হয়। কোন পেশাকে ছোট করে দেখার অবকাশ নেই। আমরা প্রত্যেকে যে দায়িত্বেই থাকে না কেন তা সঠিকভাবে পালন করার জন্য আমাদের শারীরিক ও মানসিক দলের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। প্রতিনিয়ত শারীরিক ও মানসিক দলের মধ্য দিয়ে যেতে যেতে এক সময় আমাদের জীবনের প্রতি বিতৃষ্ণা চলে আসে। কাজ করতে করতে আমাদের কাজের প্রতি যেন বিতৃষ্ণা চলে না আসে এই জন্য কাজের মাঝে মাঝে বিরতি দিয়ে আমাদের কাজ করা উচিত।

কাজের মাঝে মাঝে আমরা যে সময়টুকু বিরতি নেব সে সময়টুকু আমাদের সঠিকভাবে ব্যবহার করতে শিখতে হবে। বিরতি নেওয়ার সময় টুকুও যদি আমরা এমন কিছু করি যা আমাদের মেন্টাল স্ট্রেস আরো বাড়িয়ে দিবে তাহলে কখনই কাজের মধ্যে থাকতে আমাদের ভালো লাগবে না। বিরতির সময় টুকু আপনাকে এমন কোন কাজ করতে হবে যা আপনার মনকে আনন্দ দেয়। আমাদের শরীর ভালো রাখতে গেলে আমাদের মন ভালো রাখা খুবই জরুরি। শরীর ভালো না থাকলে যেমন কিছু করতে মন চায় না, এমনি মন ভাল না থাকলে শরীর চলে না। শরীর চালাতে গেলে মনকে সবসময় চাঙ্গা রাখতে হয়। আপনি যদি মানসিকভাবে অসুস্থ হন তাহলে আপনার শারীরিক অসুস্থতা গুলো মাথাচাড়া দিয়ে উঠবে। আবার আপনি যদি শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকেন কিন্তু হাসিখুশি মধ্যে থাকেন তাহলে আপনার অসুস্থতা অনেকটা ভুলে থাকতে পারবেন।

এখন কথা হচ্ছে আমরা কি কি উপায় আমাদের অবসর সময় গুলো সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারি। অবসর সময় গুলো সঠিকভাবে ব্যবহার করতে আমরা কখনো মুভি দেখি কখনো গান শুনি অথবা গল্পের বই পড়ি। ধরুন আপনার সামনে মজার কোন ঘটনা ঘটে গেল, দেখবেন এতে যদি আপনি আনন্দিত হন এই ভালোলাগার বেশ অনেকক্ষণ আপনার মনে থাকে যাবে। আপনি একটা না দশ মিনিট হাসলে আপনার মন অনেকটা হালকা হয়ে যাবে। সুতরাং আমরা বুঝতেই পারছি আমাদের মন হালকা করতে গেলে এমন ভাবে সময় কাটাতে হবে যাতে আমরা হাসিখুশি থাকতে পারি।

আজ আমরা এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে এসেছি আপনি কিভাবে হাসিখুশি থাকতে পারবেন। বাংলা জোকস অথবা হাসির কৌতুক হতে পারে আপনার মন হালকা করার ঔষধ। বাংলা মজার মজার জোকস গুলো আপনি শুনলে অথবা পড়লে হাসি পেতে বাধ্য। আপনি জোকস গুলো পড়ে যদি একটানা অনেকক্ষণ হেসে থাকেন এরপর দেখবেন এই আনন্দের সময় টা আপনার সারা দিন টা ভালো করে দিয়েছে।

কাজ করতে করতে আপনি যদি অনেক ক্লান্তি অনুভব করেন সেই সময়ে দশ-পনেরো মিনিট বিশ্রাম নিয়ে পড়ে ফেলতে পারেন দম ফাটানো হাসির কৌতুক গুলো। এই দশ পনেরো মিনিটের বিরতি আপনাকে পরে আরো তিন চার ঘন্টা কাজ করার মত এনার্জি দিবে। আপনি যদি কাজ করার ফাঁকে ফাঁকে এমন দশ পনের মিনিট বিরতি না নেন তবে একটানা অক্লান্ত পরিশ্রম করতে করতে আপনি বিপর্যস্ত হয়ে পড়বেন। তাই কাজের মাঝে মাঝে সব সময় চেষ্টা করবেন 10 থেকে 15 মিনিট বিশ্রাম নেওয়ার।

বাংলা জোকস

বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মজার মজার সব ঘটনা নিয়ে আমরা দম ফাটানো হাসির জোকস সংগ্রহ করেছি। আমাদের কাছে আপনি গোপাল ভার থেকে শুরু করে নাসিরুদ্দিন হোজ্জার জীবনের মজার মজার ঘটনা নিয়ে তৈরি করার জোকস গুলো পাবেন।

হাসির কৌতুক

আমাদের মাঝে অনেকেই রয়েছে যারা নিয়মিত জোকস পড়তে পছন্দ করে। আপনি যদি নিয়মিত হাসির কৌতুক পড়তে চান তাহলে যেকোনো সময় ভিজিট করতে পারেন আমাদের ওয়েবসাইটে। আমাদের ওয়েবসাইটে আপনি অসংখ্য হাসির কৌতুক পাবেন যা আপনার মন ভালো রাখার অনেক বড় মেডিসিন হয়ে উঠতে পারে। এসব কৌতুক গুলো আপনি আপনার বন্ধুদের কাছে শেয়ার করে তাদেরও হাসাতে পারবেন।

অনেক সময় আমরা বিভিন্ন সভা-সমাবেশে গেলে অথবা পারিবারিক কোন আচার অনুষ্ঠানে সবাই কিছু না কিছু করে দেখাতে অনুরোধ করে। আপনি এমন পরিস্থিতিতে পড়লে যে কোন হাসির জোকস শুনিয়ে সবাইকে হাসাতে পারবেন। তাই হাসির জোকস গুলো সংগ্রহ করার জন্য সবসময় চোখ রাখুন আমাদের ওয়েবসাইটে এবং জোকস শুনিয়ে অন্য কেউ আনন্দ দিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.